Search
Close this search box.

পার্বত্য চট্টগ্রাম রেগুলেশন বাতিলের ষড়যন্ত্র বন্ধের দাবিতে রাঙামাটিতে বিক্ষোভ

শেয়ার করুন

Facebook
X
Skype
WhatsApp
OK
Digg
LinkedIn
Pinterest
Email
Print

আদালতের মাধ্যমে সিএইচটি রেগুলেশন ১৯০০ বাতিলের ষড়যন্ত্র বন্ধের দাবিতে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) ও সহযোগী সংগঠনসমূহের উদ্যোগে রাঙামাটির বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ মিছিল, অবস্থান ধর্মঘট ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে রাঙামাটি সদর, কুতুকছড়ি, বেতবুনিয়ায় এই বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।

বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা বলেন, ব্রিটিশ প্রণীত ১৯০০ সালের পার্বত্য চট্টগ্রাম রেগুলেশনে এ অঞ্চলে বসবাসরত পাহাড়িদের প্রথাগত আইন, রীতি-নীতি ও ভূমি অধিকারের স্বীকৃতি রয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের দায়িত্ব হচ্ছে এ আইনকে সুরক্ষা দেওয়া। কিন্তু সরকার তা না করে সিএইচটি রেগুলেশন বাতিলের ষড়যন্ত্রে দু’জন বাঙালির সাথে যুক্ত হয়েছে, যারা দৃশ্যত একটি বিশেষ স্বার্থান্বেষী মহলের কথায় আইনটি অকার্যকর করতে সুপ্রীম কোর্টে রিভিউ পিটিশন দাখিল করেছে। এর মাধ্যমে তারা পার্বত্য চট্টগ্রামে রাজা, হেডম্যান ও কার্বারীর পদবী বিলুপ্তিসহ পাহাড়িদের প্রথাগত আইন, রীতি-নীতি ও ঐতিহ্য-সংস্কৃতি চিরতরে মুছে দিতে চাচ্ছে।

সমাবেশ থেকে অবিলম্বে সিএইচটি রেগুলেশন বাতিলের ষড়যন্ত্র বন্ধ করে আইনটি বলবৎ রাখার পদক্ষেপ গ্রহণ করা, পাহাড়িদের প্রথাগত ভূমি অধিকারের সাংবিধানিক স্বীকৃতি, বাঙালিদের সমতলে পুনর্বাসন ও পার্বত্য চট্টগ্রামে স্থায়ী শান্তির স্বার্থে পূর্ণস্বায়ত্ত¡শাসনের দাবি মেনে নেয়ার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানানো হয়।

সমাবেশ চলাকালে প্রায় আধা ঘন্টা রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিলো।

জাতীয়

১৮ জুলা ২০২৪

সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি নন কোটাব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারীরা। তাদের প্ল্যাটফর্ম বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের এক বিজ্ঞপ্তিতে বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই)

জাতীয়

১৮ জুলা ২০২৪

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের সাথে বসার বিষয়ে সরকারের ইতিবাচক বার্তার পর বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের সমন্বয়ক হাসনাত আবদুল্লাহ বলেছেন, গুলি আর আলোচনা

জাতীয়

১৮ জুলা ২০২৪

কোটা সংস্কারপন্থিদের আন্দোলনে উত্তাল দেশ। এরইমধ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগের সঙ্গে চলছে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া। তারই মধ্যে ধানমনণ্ডির রাপা